ভারতের কারাগারে কুরআন তিলাওয়াতের কারনে বেঁচে ছিলাম : ফারুক আব্দুল্লাহ

171

২০১৯ সালের আগস্টে ভারতের সংবিধান থেকে কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা বাতিল উ’গ্র হিন্দুত্ববাদী বিজেপি সরকার। বাতিলের পরপরই উপত্যকাটি শুরু করে ভয়াবহ দ’ম’ন’পী’ড়’ন।

সেসময় রাজনৈতিক নেতাদের থেকে শুরু করে স্বাধীনতাকামীদের আটক করে রাখে ভারতের নি’র্ম’ম কারাগারে। শুরু করে উপত্যকায় এক নতুন যজ্ঞ।

সেবছরের ৫ আগস্ট থেকে কয়েক মাস ধরে ভারতের নি’র্ম’ম কারাগারে বন্দি করে রাখা হয়েছে কাশ্মীরের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ও ন্যাশনাল কনফারেন্স (এনসি) এর সভাপতি ফারুক আবদুল্লাহকেও।

সংবাদমাধ্যম দি হিন্দুকে এক সাক্ষাতকারে তিনি বন্দি জীবনের স্মৃতিচারণ করে বলেন, আমার সাথে অ’প’রা’ধী’র মতো আচরণ করা হয়েছে। আমাকে চোর বলা হয়েছে, কঠোর আইন প্রয়োগ করা হয়েছে।

যেন আমি স’ন্ত্রা’সী। আমি একজন এমপি, অথচ ফোনও দেওয়া হয়নি। মনে হয়েছে, স’ন্ত্রা’সী হলে বোধহয় বেশি সুবিধা পেতাম।

তিনি বলেন, বন্দী সময়ে দরজায় তার মেয়েকে পড়ে যেতে দেখাটা ছিল তার জীবনের দ্বিতীয় সবচেয়ে কঠিন মুহূর্ত।

ড. ফারুক আব্দুল্লাহ বলেন, চিকিৎসার জন্য আমাদেরকে কয়েক দিন ডাক্তারের কাছে যেতে হয়েছিল। তা ছিল সবচেয়ে ম’র্মা’ন্তি’ক ঘটনা। আমাকে সব কিছু বহন করতে হতো। কারাগারে কুরআনের কারণেই আমি বেঁচে আছি। আমি প্রতিদিন কুরআন তিলাওয়াত করি।

সূত্র: দি হিন্দু

ফিলিস্তিনকে নতুন করে গড়তে তুরস্কে হামাস ও ফাতাহর বৈঠক

ফিলিস্তিন পুনর্মিলনকে ত্বরান্বিত করার বিষয়ে আলোচনার জন্য ফিলিস্তিনের ইসলামী প্রতিরোধ আন্দোলন হামাস ও ফাতাহের প্রতিনিধিদের মধ্যে তুরস্কে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) অনুষ্ঠিত বৈঠকের পর হামাসের শীর্ষস্থানীয় নেতা খলিল আল-হাইয়া এক বিবৃতিতে বলেন,
এই মাসের শুরুর দিকে রামাল্লাহ ও বৈরুতে হামাস ও ফাতাহর মধ্যে অনুষ্ঠিত বৈঠকের সিদ্ধান্তসমূহ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মঙ্গলবারের এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়েছে, হামাস ফিলিস্তিনিদের বিরুদ্ধে চক্রান্ত ও চ্যালেঞ্জ মোকাবেলার জন্য একটি বিস্তৃত ও জাতীয় কৌশল অর্জনের প্রত্যাশায় জাতীয় ঐক্য অর্জনে আগ্রহী।

এর আগে ফাতাহর মুখপাত্র মাওনির আল-জাগৌব এক টুইট বার্তায় বলেন, ফিলিস্তিনের আন্তঃবিভেদ শেষ করতে এবং গত ৩ সেপ্টেম্বরের বৈঠকের সিদ্ধান্তসমূহ বাস্তবায়নের জন্য হামাস প্রতিনিধিদের সাথে বৈঠক করবে ফাতাহর প্রতিনিধিরা।

প্রসঙ্গত, গত ৩ সেপ্টেম্বর তাদের বৈঠক চলাকালীন হামাস ও ফাতাহ আনুপাতিক প্রতিনিধিত্বের ভিত্তিতে নির্বাচনের মাধ্যমে তাদের দ্বন্দ্ব নিরাময় করা এবং শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তর নীতি প্রতিষ্ঠাসহ অনেকগুলি বিষয়ে একমত হন।

সূত্র: আনাদোলু এজেন্সি