রাষ্ট্রপতির ছেলের গাড়িচালককে মারধর, ছাত্রলীগকর্মীর নামে মামলা

গাড়ির হর্ন দেয়ায় রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের ছেলের গাড়িচালককে মারধরের অভিযোগে করা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন ২৮ জুলাই দাখিল করা হবে।

মঙ্গলবার মামলার এজাহার গ্রহণ শেষে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য এ দিন ধার্য করেন ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট তরিকুল ইসলাম।

এর আগে মারধর ও হত্যার হুমকির অভিযোগ এনে ভুক্তভোগী গাড়িচালক নজরুল ইসলাম রাজধানীর ওয়ারী থানায় মামলা করেন।

মামলায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ কর্মী কৌশিক সরকার সাম্যসহ অজ্ঞাত চার-পাঁচজনকে আসামি করা হয়েছে।

অভিযুক্ত সাম্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম আকতার হোসাইনের অনুসারী।

মামলার অভিযোগে বলা হয়েছে, গাড়িচালক নজরুল ইসলাম ২৬ জুন বঙ্গভবন থেকে রাষ্ট্রপতির নাতি ইসা আব্দুল্লাহকে (৮) প্রাইভেট পড়তে দিয়ে বঙ্গভবনে ফিরছিলেন।

তিনি ওয়ারীর চামু ডেল্টার মোড় থেকে টিপু সুলতান রোডের মাথায় পৌঁছার পর গাড়ির হর্ন দেন। এ সময় আসামি কৌশিক সরকার সাম্য মোবাইলে কথা বলতে বলতে রাস্তা পার হচ্ছিলেন।

হর্ন দেয়ার পর সাম্য উত্তেজিত হয়ে গাড়ির দিকে তেড়ে আসেন এবং অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন।

এক পর্যায়ে চালকের মুখে থুতু নিক্ষেপের পর গাড়ির পেছনে জোরে লাথি মারেন সাম্য।

এমন আচরণের পর সাম্যর পরিচয় জানার চেষ্টা করলে তিনি উত্তেজিত হয়ে মোবাইল ফোনে অজ্ঞাত চার-পাঁচজনকে ডেকে আনেন। এ সময় সাম্যসহ অন্যরা নজরুলের মুখ ও পিঠে এলোপাতাড়ি আঘাত করেন এবং হত্যার হুমকি দিয়ে চলে যান।