পদ্মা সেতুতে প্রত্নতাত্ত্বিকসামগ্রীসহ বাসযাত্রী আটক

পদ্মা সেতু হয়ে ঢাকায় আসার সময় যাত্রীবাহী বাস থেকে প্রত্নতাত্ত্বিকসামগ্রীসহ জসিম উদ্দিন মিয়া নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) রাত দেড়টার দিকে শরীয়তপুরের জাজিরা পয়েন্টের টোল প্লাজায় তল্লাশি চালিয়ে তাকে আটক করা হয়।


এ সময় তার থেকে আগের দিনের রাজা-বাদশাহদের ব্যবহারের প্রত্নতাত্ত্বিকসামগ্রী জব্দ করা হয়েছে।

গতকাল বুধবার দিবাগত রাত একটার দিকে ভারতের কলকাতা থেকে আসা গ্রীন লাইন পরিবহনের একটি বাস থেকে এসব মালামাল উদ্ধার করে পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার টহলরত পুলিশ।

আটক জসিমের বাড়ি ভোলার চরফ্যাশনে। তিনি ওই প্রাচীন মূর্তি নিয়ে কলকাতা থেকে ঢাকায় যাচ্ছিলেন বলে জানিয়েছে পুলিশ।

শরীয়তপুরের পুলিশ সুপার এস এম আশ্রাফুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কলকাতা থেকে ছেড়ে আসা গ্রীন লাইনের একটি বাসে অভিযান চালানো হয়।

বাসের যাত্রী জসিম উদ্দিনের কাছ থেকে শত বছরের পুরোনো অনেক মূল্যবান তিনটি সিংহের মূর্তি, কারুকাজ করা একটি কলস, বিভিন্ন ধরনের পুরাকীর্তি ও দুটি ভিডিও ক্যামেরা উদ্ধার করা হয়।

এসব মূল্যবান পুরাকীর্তি পরিবহনের অভিযোগে জসিম উদ্দিনকে আটক করা হয়েছে।

অবৈধভাবে আনা এসব পণ্যের কোনো ধরনের বৈধ কাগজপত্র দেখাতে পারেননি জসিম। পরে উদ্ধার করা সব মালামাল পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

পুলিশ সুপার আরও বলেন, মূর্তিগুলো কষ্টিপাথরের হয়ে থাকতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তবে অধিকতর পরীক্ষা শেষেই মূর্তিগুলো সম্পর্কে পরিষ্কারভাবে জানা যাবে। বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে তদন্ত করা হচ্ছে।

পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, জসিম উদ্দিনের পাসপোর্ট ও ভিসায় ঠিকানা রয়েছে ভোলার চরফ্যাশন।

অবৈধভাবে প্রাচীন স্থাপত্য ও মূর্তি পাচারের অভিযোগে ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা করা হবে। বিষয়টির তদন্তকাজ শুরু করেছে পুলিশ।



এ সবের মধ্যে রয়েছে ১টি বড় কলসসাদৃশ্য অভিজাত নকশা করা সুরা বা পানি পানের ডাবর, ১টি প্রাচীন ঐতিহ্যের মোমদানি, ৩টি শোপিস জাতীয় সিংহমূর্তি ও দুটি পুরাতন প্যানাসোনিক ভিডিও ক্যামেরা।

প্রত্নতাত্ত্বিক সামগ্রীগুলো কাঁসা-পিতলের ধাতুর তৈরি বলে ধারণা করা হচ্ছে।



পদ্মা সেতু দক্ষিণ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোস্তাফিজুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়েছে।

তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় সম্পত্তি পাচারের অভিযোগে মামলা করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায়  তাকে  শরীয়তপুর আদালতে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি। গ্রেফতার জসিম জানান, তিনি ভারতে গিয়ে এগুলো কিনে ঢাকায় এনে বিক্রি করেন।