বিয়ের প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় মেয়ের মাকে হত্যা, একজনকে মৃত্যুদণ্ড

গোপালগঞ্জে চাঞ্চল্যকর ক্ষমা বিশ্বাস হ’ত্যা মামলায় অজিত বাকচী নামের একজনকে মৃত্যুদণ্ডের আদেশ দিয়েছেনে আমলী আদালত।

সেই সাথে তাকে এক লাখ টাকা জরিমানাও করা হয়েছে। গোপালগঞ্জের অতিরিক্ত দায়রা জজ মো. আব্বাস উদ্দীন বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) দুপুরে এ রায় দেন। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি পলাতক রয়েছে। মামলার অপর আসামিকে খালাস দেয়া হয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার খোর্দ্দ দূর্বাশুর গ্রামের রমেশ বাকচীর ছেলে দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি অজিত বাকচী নিহত ক্ষমা বিশ্বাসের মেয়ে তপু বিশ্বাসকে বিয়ে করার জন্য ঘটনার এক বছর আগে প্রস্তাব দেয়।

প্রস্তাব প্রত্যাখ্যাত হওয়ায় ওই পরিবারকে প্রতিনিয়ত হু’ম’কি দিয়ে আসছিল আসামিরা।

গেল ২০১৩ সালের ১৩ অক্টোবর রাত আনুমানিক সাড়ে ১১টার দিকে পূজার অনুষ্ঠান দেখে বাড়ি ফিরছিলেন ক্ষমা বিশ্বাস, মেয়ে তপু বিশ্বাস, ছেলে অপু বিশ্বাস ও বোন স্বপ্না।

পথিমধ্যে তপুকে জোর করে ছিনিয়ে নিতে গেলে মা ক্ষমা বিশ্বাস বাধা দিলে ধারালো ছু’রি দিয়ে অজিত বাকচী তার বুকে আ’ঘা’ত করলে ঘটনাস্থলেই তিনি নি’হ’ত হন। এসময় ছেলে অপু বিশ্বাসকেও আ’হ’ত করে সে।

এ ঘটনায় পরের দিন মুকসুদপুর থানায় দুই জনকে আসামি করে একটি হ’ত্যা মামলা দায়ের করা হয়। দীর্ঘ সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে বিজ্ঞ বিচারক উপরোক্ত রায় দেন।

সরকার পক্ষে এপিপি শহিদুজ্জামান খান এবং আসামি পক্ষে ফজলুল হক খান মামলাটি পরিচালনা করেন।