শিক্ষকের বাড়িতে বোমা, এলাকা ঘিরে রেখেছে পুলিশ

সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুরে এক শিক্ষকের বাড়িতে বোমা রাখা হয়েছে, এমন আতঙ্কে ওই এলাকা ঘিরে রেখেছে পুলিশ। ওই বাড়ির সবাইকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে আনা হয়েছে। এ ঘটনায় এলাকাজুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। 

সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার এনায়েতপুর থানার গোপরেখী দক্ষিণপাড়ায় কলেজশিক্ষক গফুর হোসেনের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটেছে।

গতকাল রোববার রাতে বোমা সদৃশ বস্তুটি দেখা গেলেও থানায় খবর দেওয়া হয় বেলা সাড়ে ১১টার দিকে। তারপর থেকে এলাকাটি ঘিরে রেখেছে এনায়েতপুর থানা পুলিশ। 

বিষয়টি সোমবার বিকেলে ঢাকা পোস্টকে নিশ্চিত করেছেন এনায়েতপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিসুর রহমান। 

বাড়ির মালিক শাহজাদপুর ঘোরশাল সাহিত্যিক বরকত উল্লাহ কলেজের প্রভাষক গফুর হোসেন বলেন, গতকাল রাতে একজন আমাকে ফোন করে তোর মিটসেফের নিচে অস্ত্র আছে বলে ফোনের লাইন কেটে দেন।

এরপর সেখানে দেখি কার্টনের মধ্যে তার ও টেপ মোড়ানো লম্বাটে বোমা। পরে সোমবার সকালে থানা পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করি। এরপর পুলিশ বোমাটি উদ্ধারের চেষ্টা করছে।

এনায়েতপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিসুর রহমান ঢাকা পোস্টকে বলেন, আমরা বোমাসদৃশ বস্তুটি নিষ্ক্রিয় করার বিষয়টি র‍্যাবকে অবহিত করেছি। সেটি নিষ্ক্রিয় করতে তারা ঢাকা থেকে রওনা হয়েছেন।

বর্তমানে নিরাপত্তার স্বার্থে চারদিক ঘিরে রাখা হয়েছে। তবে এটা বোমা নাকি অন্যকিছু তা এখনই বলা যাচ্ছে না।

শিক্ষকের বাড়িতে পাওয়া বস্তুটি বোমা নয়

সিরাজগঞ্জের এনায়েতপুরে এক শিক্ষকের বাড়িতে বোমা রাখা হয়েছে- এমন আতঙ্কে ওই এলাকা পুলিশ ঘিরে রাখে। পরে জানা গেল সেটি বোমা নয়। ঢাকা থেকে বোমা নিষ্ক্রিয় করতে আসা র‍্যাবের একটি দল সেটি উদ্ধারের পরে যাচাই-বাছাই করে এ তথ্য জানিয়েছে।

সোমবার (৪ জুলাই) রাত ৯টার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন এনায়েতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনিসুর রহমান।

তিনি বলেন, আমরা বোমাসদৃশ বস্তুটি দেখে সেটি নিষ্ক্রিয় করার জন্য বিষয়টি র‍্যাবকে অবহিত করেছিলাম। পরে সেটি নিষ্ক্রিয় করতে ঢাকা থেকে র‍্যাবের একটি বোমা বিশেষজ্ঞ দল আসে।

পরে তারা বোমাসদৃশ জিনিসটি উদ্ধার করে দেখেন সেটি আসলে বোমার মতো করে বানানো কিছু, কিন্তু বোমা নয়।

ওসি আরও বলেন, ধারণা করা হচ্ছে কেউ ওই শিক্ষককে ভয় দেখাতে বোমাসদৃশ কিছু এভাবে রেখে দেয়। কে বা কারা কাজটি করেছে তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। অতি দ্রুত তাদের শনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হবে।

এর আগে সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলার এনায়েতপুর থানার গোপরেখী দক্ষিণপাড়ায় কলেজ শিক্ষক গফুর হোসেনের বাড়িতে বোমাসদৃশ বস্তুটি রাখা হয়।

রোববার রাতে বোমাসদৃশ বস্তুটি দেখা গেলেও সকাল সাড়ে ১১টার দিকে থানায় খবর দেওয়া হয়। তারপর থেকে এলাকাটি ঘিরে রাখে এনায়েতপুর থানা পুলিশ।

বাড়ির মালিক প্রভাষক গফুর হোসেন জানিয়েছিলেন, রোববার রাতে একজন আমাকে ফোন করে ‘তোর মিটসেফের নিচে অস্ত্র আছে’ বলে ফোনের লাইন কেটে দেন। এরপর সেখানে দেখি কার্টনের মধ্যে তার ও টেপ মোড়ানো লম্বাটে বোমা। পরে সোমবার সকালে পুলিশকে বিষয়টি অবহিত করি।