চুল ছিনতাই করলেন সাবেক ছাত্রলীগ নেতা

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলায় ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা থেকে পরচুলা ছিনতাইয়ের ঘটনায় মামলার প্রধান আসামি করা হয়েছে কুমিল্লা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহসম্পাদক সাজিদুল আলমকে। এ ঘটনায় অটোরিকশার চালককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (২ আগস্ট) দুপুরে বুড়িচং থানার ওসি মারুফ রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে সোমবার (১ আগস্ট) রাতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার দেওয়া তথ্যে ওই ছাত্রলীগ নেতার নাম উঠে আসে। পরে একই দিন রাত ১০টায় বুড়িচং থানায় তাকে প্রধান আসামি করেন পরচুলাগুলোর মালিক।

মামলার প্রধান আসামি বুড়িচং উপজেলার ষোলনল ইউনিয়নের খাড়াতাইয়া গাজীপুর গ্রামের রহমত আলীর ছেলে সাজিদুল। তিনি জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক ছিলেন।

গ্রেপ্তারকৃত অটোরিকশারচালক একই উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের উত্তর গ্রামের তাঁরা মিয়ার ছেলে আশরাফুল ইসলাম (২৫)।

জানা গেছে, শুক্রবার (২৯ জুলাই) সকাল ১১টার দিকে উপজেলার খাড়াতাইয়া এলাকা থেকে ইয়াকিন হিউম্যান হেয়ার প্রসেসিং অ্যান্ড সাপ্লাই নামে একটি প্রতিষ্ঠানের ৮ বস্তা চুল ছিনতাই হয়।

ব্যাটারিচালিত অটোরিকশায় করে এসব চুল কুমিল্লা শহরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। এ সময় খাড়াতাইয়া এলাকায় পৌঁছালে অটোরিকশা গতিরোধ করে চালককে মারধর করে চুলসহ অটোরিকশাটি ছিনতাই করে।

পরে আগানগর এলাকায় এনে অটোরিকশার মালামাল অন্য অটোরিকশায় নিয়ে কণ্ঠনগরের দিকে নিয়ে যায়। ঘটনার দিন প্রতিষ্ঠানের মালিক হুমায়ুন কবির বুড়িচং থানায় একটি অভিযোগ দেন।

এদিকে পুলিশ স্থানীয় একটি সিসিটিভি ফুটেজ দেখে ছিনতাইকারীদের চিহ্নিত করা হয়। পরে তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে অটোরিকশার চালককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

এ সময় চালকের দেওয়া তথ্যানুযায়ী পুলিশ অভিযান চালিয়ে কণ্ঠনগরের একটি বাড়ি থেকে চুলগুলো উদ্ধার করে। এ সময় ছিনতাইয়ে ব্যবহৃত মোটরসাইকেল ও অটোরিকশা জব্দ করা হয়।

সিসিটিভি ফুটেজ ও গ্রেপ্তারকৃত অটোরিকশার চালকের দেওয়া তথ্যে পুলিশ জানতে পারে, ছাত্রলীগ নেতা সাজিদুল এ ঘটনায় সরাসরি জড়িত।

বুড়িচং থানার ওসি মারুফ রহমান জানান, অটোরিকশা চালককে জিজ্ঞাসাবাদ করার পর তারা ছাত্রলীগ নেতা সাজিদুল আলমের ছিনতাইয়ের বিষয় সম্পর্কে জানতে পারেন। এ ছাড়া সিসিটিভি ফুটেজ থেকে তাকে চিহ্নিত করা হয়েছে। এটি প্রমাণিত তিনি ছিনতাইয়ের সঙ্গে সরাসরি জড়িত। তাকে গ্রেপ্তারে চেষ্টা অব্যাহত আছে।