‘মজার খাবার’ দেবে বলে হলুদ ক্ষেতে নিয়ে দ্বিতীয় শ্রেণির ছাত্রীকে ধ’র্ষ’ণ

লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম ইউনিয়নে দ্বিতীয় শ্রেণির এক ছাত্রীকে (৭) ধ’র্ষ’ণে’র অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে পাটগ্রাম থানায় নারী ও শিশু নি’র্যা’ত’ন দমন আইনে মামলা করেছেন। 

শনিবার বিকেলে পাটগ্রাম থানার ওসি ওমর ফারুক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে এ ব্যাপারে ভিকটিমের বাবার একটি অভিযোগ পেয়েছি।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় ওই ছাত্রী বাড়ির উঠানে খেলা করার সময় একই ইউনিয়নের আমজাদ আলীর ছেলে (১৬) ছাত্রীকে মজাদার খাবার দেওয়ার কথা বলে পাশের হলুদ ক্ষেতে নিয়ে ধ’র্ষ’ণ করে।

ছাত্রীর চিৎ’কা’রে স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে ফরিদুল পালিয়ে যান। এ সময় অজ্ঞান অবস্থায় স্থানীয়রা মেয়েটিকে তার মায়ের কাছে পৌঁছে দেয়।

ওইদিন দুপুরে পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মেয়েটিকে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে পাটগ্রাম থানায় মামলা করেন।

পুলিশ মামলা আমলে নিয়ে রাতেই অভিযান চালায়। তবে ছেলে ও তার পরিবারের সবাই পালিয়ে যান। শুক্রবার দুপুর ১২টায় থানা-পুলিশ মেয়েটির স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য লালমনিরহাট জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়।

এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য মইনুল ইসলাম বলেন, এখন পর্যন্ত মেয়ে ও ছেলের পরিবারের কোনো সদস্য আমাকে এ বিষয়ে কিছুই বলেনি।

আমি বিভিন্নজনের কাছে ঘটনা জেনেছি। তবে মেয়ের তুলনায় ছেলের বয়স ৯-১০ বছর বেশি হবে। আমাদের তো এসব বিষয়ে হাত দেওয়ার সুযোগ নেই।

ওসি ওমর ফারুক বলেন, ধ’র্ষ’ণে’র অভিযোগে মেয়ের বাবা বাদী হয়ে মামলা করেছে। ওইদিন রাতই অভিযান চালানো হয়েছে। ছেলে ও তার পরিবারের লোকজন পালিয়ে যাওয়ায় কাউকে ধরা সম্ভব হয়নি। তবে আসামিকে আটকের জন্য পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।